Breaking News
Home / জাতীয় / মদনে নৌকা ডুবির ঘটনায় নিখোঁজ থাকা আরো একটি মরদেহ উদ্ধার হল

মদনে নৌকা ডুবির ঘটনায় নিখোঁজ থাকা আরো একটি মরদেহ উদ্ধার হল

মহিউদ্দিন, নেত্রকোনা জেলা প্রতিনিধি:  নেত্রকোনার মদন উপজেলায় পর্যটন কেন্দ্র মিনি কক্সবাজার নামে খ্যাত উচিতপুর হাওরে ঘুরতে এসে নৌকা ডুবির ঘটনায় শিকার হওয়া আরও এক ব্যক্তির মরদেহ উদ্ধার করে এলাকবাসী। এনিয়ে মোট ১৮ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে। আজ বৃহস্পতিবার (৬ আগস্ট) সকাল ৯ টার দিকে গোবিন্দশ্রীর রাজালীকান্দা এলাকায় মরদেহ ভেসে উঠলে এলাকাবাসী এই মরদেহ উদ্ধার করে। মৃত ব্যাক্তির নাম রাকিব মিয়া (২০) সে ময়মনসিংহ উপজেলার কোনাবাড়ি গ্রামের শফিকুল ইসলামের ছেলে। তিনি নেত্রকোনা আটপাড়া উপজেলার তেলিগাতি টেঙ্গা জামিয়া আরাবিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক ছিলেন। গতকাল বুধবারের নৌকা ডুবির ঘটনায় মদন উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তাকে প্রধান করে ৪ সদস্য তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। তদন্ত কমিটির অন্য সদস্যরা হলে মদন থানার অফিসার ইনর্চাজ রমিজুল হক,উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ফখরুল হাসান চৌধুরী,ফায়ার সার্ভিস স্টেশন অফিসার আহমেদুল হক। উল্লেখ্য, বুধবার দুপুরে মদনের উচিতপুরের সামনের হাওর গোবিন্দশ্রী রাজালীকান্দা নামক স্থানে এ নৌকা ডুবির ঘটনা ঘটে। উদ্ধার হওয়া লুবনা আক্তার (১০) ও জুলফা আক্তার (৭) ২ সহোদর বোনসহ ১৭ জনের মরদেহ গতকাল উদ্ধার করা হয়। স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, বুধবার সকালে ময়মনসিংহ সদর থানার ৫নং চর সিরতা ইউনিয়ন ও আটপাড়া তেলিগাতী থেকে ৪৮ জন মিলে একটি ইঞ্জিন চালিত নৌকায় করে মিনি কক্সবাজার উচিতপুর হাওড়ে ঘুরতে বের হয়। পরে ঘুরার একপর্যায়ে হাওরের উত্তাল ঢেউয়ে গোবিন্দশ্রী রাজালীকান্দা নামক স্থানে নৌকাটি ডুবে যায়। এতে ওইদিন ১৭ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়ে ছিলো। তবে নিখোঁজ রয়েছিলো আরও একজনের মরদেহ। এই নিখোঁজ থাকা মরদেহটি আজ সকালে হাওরের পানিতে ভাসতে দেখে এলাকাবসী তা উদ্ধার করে। ওসি মোঃ রমিজুল হক জানান, মদন হাওরে নৌকা ডুবিতে গতকাল ১৭ টি মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছিলো। একজন নিখোঁজ ছিলো আজ সকালে মরদেহটি ভেসে উঠলে স্থানীয়রা তা উদ্ধার করে।

About admin

Check Also

ঝিনাইদহের গৃহহীন মুক্তিযোদ্ধা বিপ্লব ঘোষের আঁকুতি,চাই শুধু মাথা গোঁজার ঠাই

জাহিদুর রহমান তারিক, ঝিনাইদহঃ  ১৯৭১ সালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ডাকে সাড়া দিয়ে মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *